পুদিনা পাতা সংরক্ষণের উপায়

পুদিনা পাতা সংরক্ষণ করার বিভিন্ন উপায় আছে, আমি আজ অনেকগুলো পদ্ধতিই আপনার সাথে শেয়ার করবো। এর সবগুলোই সহজ এবং পাতাগুলো ভালোও থাকে অনেকদিন।

চলুন দেখে নেওয়া যাক পুদিনা পাতা সংরক্ষণের উপায়গুলিঃ

টাটকা পুদিনা পাতা সংরক্ষণের উপায়

পুদিনা পাতা গুলো একটি ভেজানো স্যাঁতসেঁতে তোয়ালে/নরম কাপড় দিয়ে আলতো করে মুড়িয়ে নিন।

এই অবস্থায় একটি প্লাস্টিকের পাত্রে পাতাগুলো রাখুন।খেয়াল রাখবেন পাত্রের ভিতর যেন বাতাস চলাচল করতে পারে। মোড়ানোর সময় লক্ষ্য রাখবেন মোড়ানো যেন বেশি শক্ত না হয়। কারণ ভিতরে আটকে থাকা আর্দ্রতা পাতাগুলিকে নষ্ট করে ফেলবে।

অথবা

একটি গ্লাসের প্রায় অর্ধেক পানি নিন এবং পুদিনা পাতার গোড়াগুলো কাচি দিয়ে ছেঁটে ওই গ্লাসের ভিতর রাখুন।একটি ব্যাগ দিয়ে মুড়িয়ে ফ্রিজে রাখুন। গ্লাসের পানি ঘোলা হয়ে গেলে পরিবর্তন করুন।

শুকিয়ে পুদিনা পাতা সংরক্ষণের উপায়

আশেপাশের শাখা সহ পাতার মূল কাণ্ডের প্রায় ৩ ভাগের ১ ভাগ অংশ পুদিনা কেটে নিন। এরপর নিচের পদ্ধতিগুলোর মধ্যে আপনার ভালো লাগে এমন পদ্ধতি ব্যবহার করুন।

ডিহাইড্রেটর মেশিনে শুকিয়ে পুদিনা পাতা সংরক্ষণ

হাল্কা ঠান্ডা পানিতে পাতাগুলো ধুয়ে নিন। একটি তোয়ালে দিয়ে পাতাগুলো মুছে নিন অথবা পানি ঝরে না যাওয়া পর্যন্ত পাতাগুলিকে উলটো করে ঝুলিয়ে রাখুন। ফুল থাকলে ছিড়ে ফেলুন। এরপর আপনার ডিহাইড্রেটর মেশিনের নির্দেশা মেনে পাতা শুকিয়ে সংরক্ষন করুন।

প্রাকৃতিক বায়ুতে শুকিয়ে পুদিনা পাতা সংরক্ষণ

পরিষ্কার পলিথিন ব্যাগে পাতাগুলো ভরে ছায়াযুক্ত স্থানে শুকিয়ে নিন। অবশ্যই পরিষ্কার পরিচ্ছন, বায়ু চলাচল করে এমন জায়গা নির্বাচন করুন। এতে শুকানো পাতাগুলো ব্যবহার উপযোগী থাকবে। এভাবে ১/২ সপ্তাহের মধ্যে যখন পাতাগুলি সম্পূর্ণ শুকিয়ে মড়মড়ে হয়ে তখন এগুলো সহজেই সংরক্ষণ করা যাবে।

ওভেনে শুকিয়ে পুদিনা পাতা সংরক্ষণ

ওভেনে ১৮০ ডিগ্রী এর কম তাপে পাতাগুলো শুকিয়ে নিন। ২-৪ ঘন্টা সময় লাগতে পারে। পাতাগুলি শুকিয়ে মড়মড়ে হয়ে গেলে এভাবে সংরক্ষণ করুন।

মাইক্রোওয়েভে শুকিয়ে পুদিনা পাতা সংরক্ষণ

একটি কাগজের তোয়ালে দিয়ে পাতাগুলো মুড়িয়ে ১-২ মিনিট মাইক্রোওয়েভে রাখুন। পাতাগুলি পুরোপুরি শুকিয়ে মড়মড়ে হয়ে যাওয়ার পর প্লাস্টিকের পাত্রে সংরক্ষণ করুন। মাঝে মাঝে পাত্রটির মুখ খুলে চেক করুন পাতাগুলো ঠিক আছে কিনা।

কারণ যেকোনো সময় এগুলো আর্দ্রতার সংস্পর্শে আসতে পারে। আর্দ্রতার সংস্পর্শে এলে পাতাগুলো দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে। যদি আদ্র অবস্থা বুঝতে পারেন তাহলে পুনরায় মাইক্রোওয়েভে শুকান। তারপর সংরক্ষণ করুন।

আরো পড়ুন- টবে পুদিনা পাতার চাষ পদ্ধতি

হিমায়িত পদ্ধতিতে পুদিনা পাতা সংরক্ষণের উপায়

কয়েকভাবে হিমায়িত করে সংরক্ষণ করা যায়।

চলুন দেখে নেই পদ্ধতিগুলোঃ

আইস কিউব পদ্ধতিতে সংরক্ষণ

১. পাতাগুলোর মধ্য থেকে পচা/নষ্ট পাতা ফেলে দিয়ে তাজা/ফ্রেশ পাতা বেছে নিন এবং পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর তোয়ালে বা অন্য নরম কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন।

২. একটি আইস কিউব ট্রের প্রতিটি ঘরে পরিমাণমত পাতা রাখুন। এবং ট্রের প্রতিটি ঘরের প্রায় অর্ধেক পানি দিয়ে পূর্ণ করুন।

৩. এই অবস্থায় ফ্রীজে রেখে দিন।

একবার কিউবগুলি জমে গেলে, ৩ মাস পর্যন্ত একটি বাতাস প্রবেশ করতে পারেনা এমন প্লাস্টিকের পাত্রে করে ফ্রীজে সংরক্ষণ করুন। প্রয়োজনে লেবেল এবং তারিখ লাগিয়ে নিন।

হিমায়িত পুদিনা পাতার ব্যবহারঃ এই হিমায়িত পুদিনা পাতা সস, চা এবং স্যুপে  ব্যবহার করা যেতে পারে। হিমায়িত পুদিনা পাতা টাটকা হিসেবে ব্যবহার করার জন্য, একটি পাত্রে আইস কিউবটি গলে যাওয়া পর্যন্ত রাখুন এবং গলে যাওয়ার পর পানি থেকে পাতাগুলো উঠিয়ে ব্যবহার করুন।

বেকিং শীট পদ্ধতিতে সংরক্ষণ

১. আইস কিউব পদ্ধতির প্রথম ধাপ অনুসরণ করুন।

২. একটি বেকিং শীটে পাতাগুলো রাখুন এবং ২/৩ ঘন্টা হিমায়িত করুন।

৩. একটি পাত্রে রেখে ৩ মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করুন।

ভ্যাকুয়াম সিলার পদ্ধতিতে সংরক্ষণ

১. আইস কিউব পদ্ধতির প্রথম ধাপ অনুসরণ করুন।

২. একটি এক মুখ খোলা পলিথিন ব্যাগের ভিতর পাতাগুলো রেখে, ভ্যাকুয়াম সিলারের মাধ্যমে খোলা মুখ বন্ধ করে দিন।

৩. প্রয়োজনে লেবেল করুন।

শেষ কথা

আজ যে পদ্ধতিগুলো বললাম সবগুলোই সোজা এবং ইফেক্টিভ। তবে আমি নিজে সব সময় আইস কিউব পদ্ধতিটি ব্যবহার করি। কারণ এটি আমার কাছে এগুলার মধ্যেও আরো বেশি সোজা মনে হয়।

আপনি চাইলে এটি ব্যবহার করতে পারেন  অথবা অন্য পদ্ধতিতেও পাতা সংরক্ষণ করতে পারেন। আর চাইলে আপনার ভালো লেগেছে এমন পদ্ধতি কমেন্টে শেয়ার করতে পারেন। আর কোথাও বুঝতে সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানানোর অনুরোধ রইল।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.